মোবাইলে ইন্টারনেটের গতি বৃদ্ধির উপায় এবং এমবি কম কাটার টিপস

মোবাইল এমন একটি প্রযুক্তি যেটা ছাড়া আমরা দুই মিনিট ও চলতে পারি না। মোবাইলের প্রতিটি অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করতে ইন্টারনেট সংযোগের প্রয়োজন হয়। ইন্টারনেট শব্দটির সাথে আমরা সবাই পরিচিত এবং সকলে এটি ব্যবহার ও করছি। মোবাইলে ইন্টারনেটে সংযোগের মাধ্যমে সারা বিশ্বের সব খবর কয়েক মিনিটের মধ্যে আমরা জানতে পারি। কিন্তু আমাদের দেশের সব জায়গায় সমানভাবে ইন্টারনেট সংযোগ পাওয়া যায় না। তাই সবাই সমানভাবে ইন্টারনেট স্পিড পাইনা এবং ইন্টারনেটের স্পিড কম হলে সেটি ব্যবহার করা অনেক সময়ই অর্থহীন হয়ে যায়। কারণ কম স্পিডে মোবাইল চালানোর সময় মোবাইল খুব স্লো কাজ করে। আবার মোবাইলে ইন্টারনেট সংযোগ ব্যবহারের জন্য ইন্টারনেট প্যাক বা এমবি কিনতে হয়। এমবি কেনার পর সেটা যদি সময়ের আগে শেষ হয়ে যায় তখন অনেকে বিপদে পড়ে। মোবাইলে কোন এপ্লিকেশন ব্যবহার করার আগে ইন্টারনেট সংযোগ দেওয়ার সাথে সাথে এমবি চলে যায়।আমরা মনে করি সিম কোম্পানি আমাদের এমবি কেটে ফেলেছে কিন্তু মোবাইলে কিছু সেটিংস এর কারণে আমাদের এমবি খরচ হয়ে যায়। তাই ইন্টারনেটের গতি বৃদ্ধি ও এমবি কম কাটার কিছু টিপস দেখে নিব-

মোবাইলে ইন্টারনেটের গতি বৃদ্ধির উপায়

১. মোবাইলে ইন্টারনেটের গতি কমে গেলে মোবাইল রিস্টার্ট করতে হবে।কারণ মোবাইল রিস্টার্ট হবার পর নতুন নেটওয়ার্ক খুঁজে,তখন ইন্টারনেটের স্পিড বেড়ে যায়।

২. মোবাইলের নেটওয়ার্ক ব্যবহার করার সময় এর সিগন্যাল ঠিকমতো পাওয়া যাচ্ছে কি না তা চেক করে দেখতে হবে। সিগন্যাল ঠিকমত না পেলে মোবাইল নেটওয়ার্কের সেটিংস ঠিক আছে কিনা দেখতে হবে।সেটিংসে কিছু চেঞ্জ হলে ইন্টারনেট স্পিড কমে যায়।

৩.মোবাইলে নেটওয়ার্কের গতি কমে এলে এয়ারপ্লেন মোড অন করে 2 মিনিট পর আবার অফ করে দিতে হবে। তখন মোবাইল নেটওয়ার্ক এর গতি বেড়ে যাবে।

৪. মোবাইলের ইন্টারনাল স্টোরেজ পরিষ্কার রাখতে হবে। কারণ মোবাইলে ইন্টারনাল স্টোরেজে তথ্য বেশি জমা হলে ইন্টারনেটের গতি কমে যায়। তাই মোবাইলের সব তথ্য এক্সটারনাল মেমোরিতে রেখে ইন্টারনাল মেমোরি পরিষ্কার রাখব,যাতে ইন্টারনেট স্পিড বৃদ্ধি পায়।

৫. আমাদের মোবাইলে কিছু অপ্রয়োজনীয় এপ্লিকেশন আছে যা আমাদের ইন্টারনেট স্পিড কমিয়ে দেয়।তাই অপ্রয়োজনীয় অ্যাপ্লিকেশন মোবাইল থেকে মুছে ফেলতে হবে বা ডিলিট করে দিতে হবে।

৬.মোবাইলের ইন্টারনেট স্পিড বেশি পেতে হলে সঠিক নেটওয়ার্ক ব্যবহার করতে হবে।বর্তমানে সবচেয়ে ফাস্ট নেটওয়ার্ক হচ্ছে ফোরজি নেটওয়ার্ক।থ্রিজি নেটওয়ার্ক এর বদলে ফোরজি নেটওয়ার্ক ব্যবহার করলে ইন্টারনেট স্পিড বৃদ্ধি পাবে।

৭. আমাদের মোবাইলে অনেক সময় অটো আপডেট অপশনটি চালু করা থাকে।এটি চালু থাকলে ইন্টারনেট ব্যবহার হবে আর অন্য কাজের জন্য ইন্টারনেটের গতি কমে যাবে।তাই অটো আপডেট অপশনটি বন্ধ রাখতে হবে,যাতে ইন্টারনেট এর গতি বৃদ্ধি পায়।

৮.আমরা মোবাইলে যে মেমোরি ব্যবহার করি সেটার উপর ও অনেক সময় ইন্টারনেটের গতি নির্ভর করে।এক্সটারনাল মেমোরি এর র‌্যাম যত বেশি ইন্টারনেটের গতি ও তত বেশি।১৬জিবি বা এর বেশি র‌্যামের মেমোরি দিয়ে মোবাইল ব্যবহার করলে ইন্টারনেট স্পিড খুব ভালো পাওয়া যাবে।

৯.মোবাইলে অনেকগুলো অ্যাপ্লিকেশন আছে যেখানে কিছুক্ষণ পর পর এড আসে।সেই এড আসার কারণে ইন্টারনেট স্পিড কমে যায়।তাই এড ব্লকার অ্যাপ্লিকেশনটি ইনস্টল করতে হবে।যাতে এড না আসে আর ইন্টারনেট স্পিড বৃদ্ধি পায়।

১০. মোবাইলে ইন্টারনেটের গতি বাড়ানোর জন্য কিছু অ্যাপ্লিকেশন আছে, সেগুলো ব্যবহার করলে ইন্টারনেট স্পিড বৃদ্ধি পাবে।যেমন:-থ্রিজি স্পিড বুস্টার,স্পিড টেস্ট,ইন্টারনেট স্পিড বুস্টার ইত্যাদি।

মোবাইলে এমবি কম কাটার উপায়

১.মোবাইলে কিছু অ্যাপ্লিকেশন আছে যা নেটওয়ার্ক সংযোগ পাওয়ার সাথে সাথে নিজে নিজে আপডেট হয়।যেমন:- মোবাইলের স্ক্রিন সুন্দর করার জন্য, আবহাওয়ার তথ্য মিনিটে মিনিটে জানার জন্য মোবাইলে বিভিন্ন লঞ্চার বা অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করে থাকি। মোবাইল ডাটা অন হওয়ার সাথে সাথে সকল আপডেট মোবাইলে এসে প্রচুর এমবি খরচ হয়। এমবি খরচ কমাতে হলে এসব অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার থেকে বিরত থাকতে হবে।

২.মোবাইলে ইউটিউব বেশি ব্যবহার করা হয় এবং এই অ্যাপ্লিকেশনটি প্রচুর এমবি ও খরচ করে। ভিডিও ডাউনলোড করে রাখলে সেগুলো অটো আপডেট হয়,যার ফলে প্রচুর এমবি খরচ হয়।তাই মোবাইলে ডাটা ব্যবহারের সময় ইউটিউব এর সেটিংস এ গিয়ে ডাউনলোড কোয়ালিটি ১৪৪ করে দিতে হবে। তাহলে এমবি কম খরচ হবে।

৩.ইউটিউবের পরে ফেসবুক অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করলে এমবি বেশি খরচ হয়। ফেসবুকে যাওয়ার সাথে সাথে মোবাইলে ছবি ও ভিডিও আসতে শুরু করে।আর সাথে সাথেই এমবি ও খরচ হয়।তাই ফেসবুক সেটিংসে গিয়ে ফটো কোয়ালিটি লো করে দিতে হবে।যাতে এমবি কম লাগে।

৪.গুগল প্লে-স্টোর অ্যাপ্লিকেশনটি শুধু নেটওয়ার্ক সংযোগ এর অপেক্ষায় থাকে। যেকোনো সময়ে এইখানে ইন্সটল থাকা অ্যাপ্লিকেশন অটো আপডেট হয় এবং ভিডিও অটো প্লে হয়।যা আমাদের সব এমবি খরচ করে দেয়। তাই গুগল প্লে-স্টোর এর থ্রি -ডট মেনুতে ক্লিক করে সেটিংসে গিয়ে অটো আপডেট অ্যাপ্লিকেশন ও অটো প্লে ভিডিও অফ করে দিতে হবে। এতে মোবাইলের এমবি কম খরচ হবে।

৫.মোবাইলের সেটিংসে রেস্ট্রিক্ট ব্যাকগ্ৰাউন্ড ডাটা চালু করে দিতে হবে।এর ফলে যে অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করা হয় ওইটা ছাড়া অন্য অ্যাপ্লিকেশন এর তথ্য আসবে না।আর এমবি ও বেশি খরচ হবে না।

ইন্টারনেট এর গতি বৃদ্ধি ও এমবি কম কাটার জন্য উপরের আলোচনাকৃত টিপসগুলো ব্যবহার করে দেখতে পারি। এতে আমাদের খুব বেশি না হলেও কিছুটা হলেও লাভ হবে।

Leave a Comment

somproti.com

FREE
VIEW